ইউক্রেনের বিমান বিধ্বস্তের ঘটনা নিয়ে রাশিয়ার নতুন তথ্য

Published: Sat, 18 Jan 2020 | Updated: Sat, 18 Jan 2020

ইউক্রেনের একটি বিমান গুলি করে নিজ ভূমিতে বিধ্বস্ত করেছিল ইরান। এতে ১৭৬ জন আরোহী নিহত হওয়ায়র ঘটনায় বেশ সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয় ইরানকে। এ বিষয়ে এখন নতুন তথ্য প্রকাশ করেছে রাশিয়া। 

রাশিয়ার ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, ‘ইউক্রেনীয় যাত্রীবাহী বিমান ভূপাতিত করার ঘটনাটি এমন সময় ঘটেছে যখন সীমান্তে অত্যাধুনিক ছয়টি মার্কিন যুদ্ধবিমান এফ-৩৫ উড়ার খবরে ইরান ঘাবড়ে গিয়েছিল।’ 

শুক্রবার (১৭ জানুয়ারি) রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে বার্ষিক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। খবর- স্পুটনিক নিউজ। 

গত ৮ জানুয়ারি ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর ভুলবশত ইরানের বিপ্লবী বাহিনীর আকাশ প্রতিরক্ষা শাখার নিক্ষিপ্ত ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে ইউক্রেনের একটি যাত্রীবাহী বিমান ভূপাতিত হয়। এ বিমানে নিহত আরোহীদের ১৭৬ জনের ১৪৭ জনই ইরানের নাগরিক। বাকি ২৯ জন ইউক্রেন, কানাডা, সুইডেন, আফগানিস্তান ও ব্রিটেনের নাগরিক ছিলেন। শুরুতে কারিগরি ত্রুটিতে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়ে দাবি করলেও শেষ পর্যন্ত ইরান স্বীকার করে তাদের ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে বিমানটি ভূপাতিত হয়।

ইরান কর্তৃপক্ষের দাবি, দেশের আশপাশে মার্কিন বিমান বাহিনীর জঙ্গি বিমানের আনাগোনা বেড়ে যাওয়ার কারণে ইরানের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছিল। এ অবস্থায় ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমান ইরানের একটি স্পর্শকাতর স্থাপনার আকাশে চলে আসায় ভুল করে সেটি লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়।

বিমানটি ভূপাতিত করার ঘটনাটি একটি ‘ভুল’ উল্লেখ করে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাভরভ বলেন, ‘যা ঘটেছে তার জন্য আমি কোন অজুহাত দাঁড় করাচ্ছি না। কিন্তু কোন পরিস্থিতিতে ঘটনাটি ঘটেছে তা অনুধাবন করা গুরুত্বপূর্ণ। এমন সময় ঘটনাটি ঘটেছে যখন ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা চালিয়েছে ইরান এবং যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে তারা পাল্টা সামরিক হামলার আশঙ্কা করছিল।’

-এমজে