ঝড়ে লণ্ডভণ্ড কলারোয়া বেত্রবতী প্রতিবন্ধী স্কুল

Published: Sun, 22 Mar 2020 | Updated: Sun, 22 Mar 2020

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা : সাতক্ষীরায় মৌসুমের প্রথম কালবৈশাখী ঝড়ে কলারোয়া উপজেলার তুলসিডাঙ্গা এলাকায় প্রতিষ্ঠিত বেত্রবতী প্রতিবন্ধী স্কুলটি লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। পাঁচটি শ্রেণীকক্ষের টিনের ছাউনি উড়ে গেছে। সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী স্কুল এখন ছুটি থাকলেও ছুটির পর খোলা আকাশের নিচে লণ্ডভণ্ড স্কুলে পাঠদান করাতে হবে প্রতিবন্ধী স্কুলের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের। শিশু শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত ১৮৫ জন প্রতিবন্ধী ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। 

রবিবার (২২ মার্চ) স্কুলে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শনিবার রাতের বয়ে যাওয়া ঝড়ে প্রতিষ্ঠানের শ্রেণীকক্ষগুলো উপড়ে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে৷ বৃষ্টির পানিতে ভিজে পাঁচটি শ্রেণীকক্ষের ৮০ জোড়া বেঞ্চ নাজুক অবস্থায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে আছে৷ ছুটির পর স্কুল খুললে শ্রেণীকক্ষের অভাবে পাঠদান ব্যাহত হবে এমন শঙ্কায় আছেন অভিভাবকসহ শিক্ষকবৃন্দ।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক আব্দুল মজিদ অভিযাত্রাকে জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদানের জন্য মোট ৫টি টিনসেড ঘর ছিল। প্রতিটি ছাউনির টিন উড়ে ছিন্ন বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ৩ লক্ষ টাকার মতো ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। স্কুল খোলার পর খোলা আকাশের নিচে প্রতিবন্ধী ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান করাতে হবে, এছাড়া কোন উপায় নেই।

তুলসীডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা মো. আলমগীর হোসেন বলেন, স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য শিক্ষা ও পাঠদানের জন্য বর্তমানে অনুপযোগী আমরা সরকার ও উপজেলা প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি৷

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু বলেন, উপজেলার মধ্যে বেত্রবতী প্রতিবন্ধী স্কুলের কার্যক্রম লক্ষণীয়৷ তবে ঝড়ে স্কুলটির বেশিরভাগ অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ভেঙে পড়েছে যা এখন পাঠদানের জন্য অনুপযোগী৷ বিষয়টি আমরা শুনেছি পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে৷ তবে প্রতিষ্ঠান থেকে এখনো পর্যন্ত লিখিত  কোন আবেদন পাওয়া যায়নি৷ 

ও/ডব্লিউইউ