সোলার চুরির সন্দেহে কিশোরকে নির্যাতন, আটক ২

Published: Tue, 23 Jun 2020 | Updated: Wed, 24 Jun 2020

জাহিদ আল হাসান, কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামের কচাকাটা থানার বলদিয়ার মংলারকুটিতে মসজিদের সোলার চুরির সন্দেহে এক কিশোরকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, প্রায় ১৫/২০ দিন পুর্বে গ্রামের মসজিদ থেকে একটি সোলার প্যানেল চুরি হয়। কিন্তু চোর শনাক্ত না করেই সোমবার (২২ জুন) দুপুরে বলদিয়া ইউপির সদস্য মো. রাজু আহমেদ (৪০), জাফর আলী মুন্সী, আয়নাল হক (৪০), আব্দুল জলিল, জাহান উদ্দিন (৫০) ও আব্দুল হান্নানসহ (২৫) ১০/১২ জনের একটি দল নিয়ে ছনবান্ধা খলিসাকুড়ি গ্রামের জসীম উদ্দিনের পুত্র মো. মাহবুবুর রহমানকে (১৭) বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যান। 

পরে সোলার চুরির অভিযোগ তুলে তাকে জাফর আলী মুন্সীর বাড়িতে গাছের সাথে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় বেদম মারপীট, নির্যাতনসহ কোমর থেকে পা পর্যন্ত বাশচাপা/বাশ ডলা দিয়ে মারাত্মক আহত করা হয়।

এ সময় আহত মাহবুবুর রহমানের মা মোছা. মালেকা বেগম ছেলেকে উদ্ধার করতে গেলে তাঁকেও কিলঘুসি ও লাথি মারা হয়। এদিকে তাঁদের অমানবিক নির্যাতনে মাহবুবুর অজ্ঞান হয়ে পরলে মারা যেতে পারে ভেবে নির্যাতনের শিকার মাহবুবুরকে অজ্ঞান অবস্থায় তার মায়ের সাথে বাড়িতে পাঠান তারা।

সোলার চুরির সন্দেহে মালামাল উদ্ধার এবং স্বাক্ষী প্রমাণ ছাড়াই তাকে অমানুষিক নির্যাতন করার বিষয়টি পুলিশ সুপারের নজরে আসলে তিনি ভূরুঙ্গামারী সার্কেল পুলিশকে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন।

মঙ্গলবার (২৩ জুন) ভূরুঙ্গামারী সার্কেল (এএসপি) শওকত হোসেন জানান, পুলিশ সুপারের নির্দেশে সোমবার (২২ জুন) গভীর রাতে ঘটনার সাথে জড়িত আসামি রাজু আহমেদ ও জাফর আহমেদকে আটক করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

ও/ডব্লিউইউ