বগুড়ার পোড়াদহ মেলায় লাখ টাকার বাঘাইড় মাছ

Published: Wed, 12 Feb 2020 | Updated: Wed, 12 Feb 2020

বগুড়া সংবাদদাতা : বগুড়ার গাবতলীর গোলাবাড়ীর ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলাকে ঘিরে মিলন মেলায় পরিনত হয়েছে গোটা এলাকা। স্থানীয়দের ঘরে ঘরে যেন উৎসব। মেয়ে জামাইয়ের সঙ্গে আত্মীয় স্বজনে ভরা সব বাড়িগুলো। বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বিশাল আকৃতির মাছ, আর বড় বড় মিষ্টি কেনাবেচার মধ্য দিয়ে শেষ হলো ঐতিহ্যবাহী মেলা। লাখ মানুষের মেলায় লাখ টাকায় বিক্রি হলো বাঘাইড় মাছ। 

গাবতলী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পোড়াদহ মেলায় ৭৩ কেজি ওজনের একটি বাঘাইড় মাছ ১৮০০ টাকা কেজি দরে দাম হাকানো হলো ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা। একটি ১৪ কেজি ওজনের মাছ আকৃতির মিষ্টি বিক্রি দাম চাওয়া হয়েছে সাড়ে ৩ হাজার টাকা। বিশাল আকৃতির মাছ, কাঠের আসবাবপত্র, গৃহস্থালি দ্রব্য আর বড় বড় মিষ্টি কেনাবেচার মধ্য দিয়ে শেষ হলো ঐতিহ্যবাহী মেলা। 

বগুড়ার পোড়াদহ মেলায় লাখ টাকার বাঘাইড় মাছ

প্রায় দুই শতাধিক বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী মেলাটিকে ৭ উপজেলার মানুষের মাঝে ছিল উৎসবের আমেজ। এবারের মেলায় সবচেয়ে বড় মাছ এনেছেন স্থানীয় মহিষাবান গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী বিপ্লব। তিনি জানান, যমুনা নদী থেকে ধরা ৭৩ কেজি ওজনের বাঘাইড় মাছ সকালে ১৮শ’ টাকা কেজি হিসেবে তিনি ১ লাখ ৩১ হাজার টাকা মাছটির দাম চেয়েছিলেন। তবে পুরো মাছ কেউ ক্রয় না করায় বেলা ১২ টার দিকে মাছটি কেটে প্রতি কেজি বিক্রি করা হয় ১৫শ’ থেকে ১৬শ’ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হয়েছে। বিপ্লবের আরও একটি ৫২ কেজি ওজনের বাঘাইড়ের দাম হাঁকান হয়েছে ৮৩ হাজার টাকা। এই মাছটি কিনতে চারবন্ধু সম্মিলিতভাবে ৪৮ হাজার টাকা পর্যন্ত দাম হাঁকিয়েছেন।

মেলায় মাছের আকৃতির বিশাল মিষ্টি পাওয়া যাচ্ছে। শিশু মিম ও তার ভাই মিনহাজ বাবা মিস্টারের সাথে মেলায় এসছে। মেলা তারা মিষ্টি খেতে ব্যস্ত। মাছের আকৃতির মিষ্টি এই মেলায় পাওয়া যায়। আকারভেদে এই মেলায় প্রতিটি মাছ মিষ্টি দেড় কেজি থেকে শুরু করে ১৪ কেজি পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়াও মেলায় রয়েছে সার্কাস, ভয়ংকর হোন্ডা খেলা, নাগরদোলা, চড়কী, নৌকা, ফুসকার দোকানসহ নানা ধরণের বিনোদন মূলক ব্যবস্থা। 

বগুড়ার পোড়াদহ মেলায় লাখ টাকার বাঘাইড় মাছ

গাবতলী উপজেলার মহিষাবান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় ২’শ বছরের অধিক সময় পূর্ব থেকে স্থানীয় সন্ন্যাসী পুজা উপলক্ষে গোলাবাড়ী বন্দরের পূর্বধারে গাড়ীদহ পশ্চিমধারে সম্পূর্ণ ব্যক্তি মালিকানা জমিতে একদিনের জন্য ঐতিহ্যবাহী এই পোড়াদহ মেলা বসে। তবে গত দু’বছর আগে থেকে মেলাটি স্থান পরিবর্তন হয়েছে। মেলা বসার পূর্বের স্থান থেকে আরেকটু পূর্বধারে এই পোড়াদহ মেলা বসেছে। 

প্রতি বছর বাংলা সনের মাঘ মাসের শেষ অথবা ফাল্গুন মাসের প্রথম বুধবার মেলাটি হয়। এ মেলাকে ঘিরে উৎসবের আমেজে মেতে উঠে মেলার আশপাশ গ্রামের সব শ্রেণীর মানুষ। তবে মেলাটি একদিনের হলেও চলে দু’থেকে তিনদিন পর্যন্ত। এ মেলায় অনেক লোকজনের সমাগম ঘটে। 

গাবতলী মডেল থানার ওসি সাবের রেজা আহমেদ বলেন, পোড়াদহ মেলাটি সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দ্বারা নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। মেলায় কোন প্রকার জুয়া কিংবা অশ্লীল নাচ-গান করতে দেওয়া হবে না। বিভিন্ন উপজেলার পাশাপাশি জেলা থেকেও সাধারণ মানুষ মেলায় এসেছেন। পুলিশ সতর্ক প্রহরায় রয়েছে।

মেলার পরিচালক স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বলেন, মেলাটি সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। মেলায় নাগরদোলা, চরকি, সার্কাস, জাদু খেলা, মোটর সাইকেল খেলাসহ শিশুদের জন্য অন্যান্য খেলা রয়েছে। 

জেলা পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা বিপিএম (বার) এর সাথে কথা হয়। তিনি জানান, ঐতিহ্য সমৃদ্ধ এই পোড়দহ মেলা। মেলায় সকল প্রকার নিরাপত্তায় কাজ করছে পুলিশ সদস্যরা। বিশাল আকৃতির মাছের মেলা এই পোড়াদহ মেলা, যা বাঙালীর ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে লালন করে।

-এমজে