৯২তম অস্কার : বিজয়ী হলেন যারা

Published: Mon, 10 Feb 2020 | Updated: Mon, 10 Feb 2020

জমকালো আয়োজনের মধ্যদিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের হলিউডের ডলবি থিয়েটারে অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের ৯২তম আসরে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। মোট ২৪টি ক্যাটাগরিতে এই পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে। অতীতের ন্যায় এ বছরও অনুষ্ঠান শুরু হয় সঞ্চালক ছাড়াই। 

বাংলাদেশ সময় আজ সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৭টায় শুরু হয় পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। প্রতিবারের মতো এবারও সেরা ছবি, সেরা পরিচালক, সেরা অভিনয়শিল্পী, সেরা প্রামাণ্যচিত্রসহ ২৪টি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার দিচ্ছে অ্যাকাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস।

এবিসি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে এই আয়োজন সরাসরি সম্প্রচার হচ্ছে বিশ্বের ২২৫টিরও বেশি দেশে। বাংলাদেশের দর্শকরা ভোর ৬টা থেকে স্টার মুভিজ ও স্টার মুভিজ এইচডি চ্যানেলে দেখতে পারছেন এবারের আয়োজন।

৯২তম অস্কার : বিজয়ী হলেন যারা

সেরা চলচ্চিত্র : ‘প্যারাসাইট’

এটাই হয়তো ইতিহাসের সবচেয়ে বড় অঘটন! এবারের আসরে সেরা চলচ্চিত্রের পুরস্কারটি জিতেছে দক্ষিণ কোরিয়ার ‘প্যারাসাইট’। অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের ৯২ বছরের ইতিহাসে এবারই প্রথম ইংরেজি ব্যতিত অন্য কোনও ভাষার ছবি সেরা চলচ্চিত্রের সম্মান পেয়েছে।

এবারের আসরে সেরা চলচ্চিত্র বিভাগে ফেবারিট ছিল স্যাম মেন্ডেসের ‘নাইনটিন সেভেনটিন’। কিন্তু দক্ষিণ কোরিয়ান নির্মাতা বং জুন-হো গত কিছুদিনে হলিউডের প্রিয় হয়ে উঠেছেন। তার ‘প্যারাসাইট’ অঘটনের জন্ম দিয়ে সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতে ইতিহাস গড়ার আভাস দিয়েছিল। বর্ষীয়ান অভিনেত্রী জেন ফন্ডা এই ছবির নাম ঘোষণা করতেই সেটা সত্যি হয়ে গেলো!

এর আগে স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড অ্যাওয়ার্ডে সেরা সম্মিলিত অভিনয়শিল্পী স্বীকৃতি পেয়ে সবাইকে চমকে দিয়েছিল ‘প্যারাসাইট’। এসএজি’র ২৬ বছরের ইতিহাসে এবারই প্রথম ইংরেজি ব্যতিত অন্য ভাষার কোনও ছবি সম্মিলিত অভিনয়শিল্পী বিভাগে সেরা হয়েছে।

সেরা অভিনেতা-অভিনেত্রী : ওয়াকিন ফিনিক্স-রেনে জেলওয়েগার

অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের ৯২তম আসরে প্রথমবারের মত সেরা অভিনেতার পুরস্কার উঠেছে ওয়াকিন ফিনিক্সের হাতে। ‘জোকার’ ছবির সুবাদে তিনি এ পুরস্কার লাভ করেন। উচ্ছ্বসিত ফিনিক্সের হাতে পুরস্কার তুলে দেন গতবারের সেরা অভিনেত্রী অলিভিয়া কোলম্যান।

‘জোকার; ছবিতে ব্যর্থতার বৃত্তে ঘুরপাক খেয়ে আত্মবিশ্বাসী ভিলেন হয়ে ওঠা একজনের চরিত্রে অনবদ্য নৈপুণ্য দেখিয়েছেন ফিনিক্স। গোল্ডেন গ্লোবস, বাফটা ও স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড বাগিয়ে তিনি ছিলেন নিরঙ্কুশ ফেবারিট।

এ বিভাগে আরও যারা মনোনয়ন পেয়েছিলেন অ্যান্টোনিও ব্যান্ডেরাস (পেইন অ্যান্ড গ্লোরি), লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও (ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম...ইন হলিউড), অ্যাডাম ড্রাইভার (ম্যারেজ স্টোরি) ও জনাথন প্রাইস (দ্য টু পোপস)। তবে তারা যে সুবিধা করতে পারবেন না তা আগেই অবধারিত ছিল। 

আর সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার ঘরে তুলেছেন রেনে জেলওয়েগার। ‘জুডি’ ছবিতে হলিউড অভিনেত্রী জুডি গারল্যান্ডের চরিত্রে স্মরণীয় অভিনয় করেছেন তিনি। তার হাতে পুরস্কার তুলে দেন গতবারের সেরা অভিনেতা রামি মালেক।

সেরা অভিনেত্রী হিসেবে রেনে জেলওয়েগারের জয় একরকম অবধারিত ছিল। এর আগে গোল্ডেন গ্লোবস, বাফটা, স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড, ক্রিটিকস চয়েস অ্যাওয়ার্ডস ও ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্পিরিট অ্যাওয়ার্ডস জেতায় অনেক এগিয়ে রাখা হয় তাকে। ২০০৪ সালে ‘কোল্ড মাউন্টেন’ ছবির জন্য সেরা সহ-অভিনেত্রীর অস্কার জেতেন। এবারও সেরা অভিনেত্রীর স্বাদ পেলেন তিনি। 

এ বিভাগে রেনে জেলওয়েগারের চার প্রতিদ্বন্দ্বি ছিলেন, সিনথিয়া এরিভো (হ্যারিয়েট), স্কারলেট জোহানসন (ম্যারেজ স্টোরি), সার্শা রোনান (লিটল উইমেন) ও শার্লিজ থেরন (বম্বশেল)।

সেরা সহ-অভিনেতা ও অভিনেত্রী : ব্র্যাড পিট-লরা ডার্ন

এবার ‘ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম...ইন হলিউড’ সিনেমার জন্য সেরা-সহ অভিনেতার খেতাব পেয়েছেন ব্র্যাড পিট। এর আগে একই সিনেমার জন্য গোল্ডেন গ্লোবস ও বাফটার পুরস্কারও উঠে তার হাতে। অস্কারের মঞ্চে ব্র‍্যাড পিট পুরস্কার গ্রহণ করেন গতবারের সেরা সহ-অভিনেত্রী রেজিনা কিংর হাত থেকে।

আর সেরা সহ-অভিনেত্রী হয়েছেন লরা ডার্ন। ‘ম্যারেজ স্টোরি’ ছবিতে বিয়েবিচ্ছেদ বিষয়ক নির্দয় আইনজীবীর ভূমিকায় মুন্সিয়ানা দেখিয়েছেন তিনি। তার হাতে পুরস্কার তুলে দেন গতবারের সেরা সহ-অভিনেতা মাহেরশালা আলি।

এবারের অস্কারে সেরা সহ-অভিনেত্রী বিভাগে সবচেয়ে ফেবারিট ছিলেন লরা ডার্ন। বাফটা, গোল্ডেন গ্লোবস, স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড, ক্রিটিকস চয়েস মুভি অ্যাওয়ার্ডস, ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্পিরিট অ্যাওয়ার্ডস জিতে এগিয়ে ছিলেন তিনি। এর আগে আরও দু’বার অস্কারে মনোনয়ন পেয়েছিলেন লরা ডার্ন। তবে এবারই প্রথম অস্কার জয়ের হাসি ফুটলো তার মুখে। 

সেরা পরিচালক : বং জুন-হো

অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের এবারের আসরে সবাইকে চমকে দিয়ে সেরা পরিচালকের সম্মান পেয়েছেন দক্ষিণ কোরিয়ার বং জুন-হো। নিজ দেশের ভাষায় বানানো ‘প্যারাসাইট’ ছবির সুবাদে এই পুরস্কার উঠলো তার হাতে। ট্রফিটি তুলে দেন পরিচালক স্পাইক লি।

সেরা পরিচালক বিভাগে নারী নির্মাতাদের উপেক্ষা করায় লিঙ্গবৈষম্যের কালিমা লেগেছে অস্কারের গায়ে। এ বিভাগে স্যাম মেন্ডেস দ্বিতীয়বার অস্কার জিতবেন বলে ধারণা করা হচ্ছিল। গোল্ডেন গ্লোব, বাফটা, ডিরেক্টরস গিল্ড অব আমেরিকা ও ক্রিটিকস চয়েস মুভি অ্যাওয়ার্ডসে সেরা পরিচালকের পুরস্কার জিতে অন্যদের চেয়ে এগিয়ে ছিলেন তিনি।

সেরা প্রামাণ্যচিত্র : ‘আমেরিকান ফ্যাক্টরি’

এ আসরে সেরা প্রামাণ্যচিত্র হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও স্ত্রী সাবেক ফার্স্টলেডি মিশেল ওবামার ‘আমেরিকান ফ্যাক্টরি’। এটি যৌথভাবে পরিচালনা করেছেন স্টিভেন বগনার ও জুলিয়া রাইকার্ট। তাদের হাতে পুরস্কারটি তুলে দেন ‘হাল্ক’ তারকা মার্ক রাফেলো। 

অস্কারে সেরা নির্বাচিত হওয়ায় স্টিভেন ও জুলিয়াকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে অভিনন্দন জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। কারণ তার ও মিশেল ওবামার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান হাইয়ার গ্রাউন্ড প্রোডাকশন্স এই প্রামাণ্যচিত্রটির মাধ্যমে প্রযোজনায় এসেছে। ‘আমেরিকান ফ্যাক্টরি’ পরিবেশনা করেছে ভিডিও স্ট্রিমিং প্রতিষ্ঠান নেটফ্লিক্স।

সেরা মৌলিক গানে : এলটন জনে

এবার মৌলিক গানে সেরার পুরস্কার উঠেছে ব্রিটিশ তারকা স্যার এলটন জনের হাতে। ‘রকেটম্যান’ ছবির “আই’ম গনা লাভ মি অ্যাগেইন” গানের সুবাদে তিনি এ সম্মান পান। গানটি গাওয়ার সঙ্গের সুরও বেধেছেন তিনি। এ নিয়ে চারবার অস্কারে মনোনয়ন পেয়েছেন এলটন জন। এর মধ্যে দ্বিতীয়বার ট্রফি পেলেন তিনি।

“আই’ম গনা লাভ মি অ্যাগেইন” গানের গীতিকার বার্নি টাউপিনও অস্কার জিতেছেন। পর্দায় গানটির সঙ্গে অভিনয় করেছেন টেরন এজারটন। অস্কারে গানটি পরিবেশন করেছেন এলটন জন।

সেরা এনিমেটেড ফিচার ফিল্ম : ‘টয় স্টোরি ফোর’

সেরা অ্যানিমেটেড ছবি বিভাগে পুরস্কার পেল ‘টয় স্টোরি ফোর’। শেরিফ উডি ও বাজ লাইটইয়ারের মতো বিখ্যাত কিছু চরিত্র নিয়ে এটি পরিচালনা করেছেন জশ কুলি। অ্যানিমেটেড ছবির দৌড়ে এবার ছিল রুদ্ধশ্বাস উত্তেজনা। ‘হাউ টু ট্রেইন ইউর ড্রাগন: দ্য হিডেন ওয়ার্ল্ড’, ‘আই লস্ট মাই বডি’, ‘ক্লাউস’, ‘মিসিং লিংক’ ছবিগুলোর মধ্যে যেকোনোটি সেরা হতে পারতো।

সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্য এনিমেটেড ফিল্ম : ‘হেয়ার লাভ’

স্বল্পদৈর্ঘ্য এনিমেটেড ছবির পুরস্কার পেয়েছে ‘হেয়ার লাভ’। এবারের আসরে একই বিভাগে আরও মনোনয়ন পেয়েছে ‘চেরা (ডটার)’, ‘কিটবুল’, ‘মেমোরেবল’, ‘সিস্টার’। ‘হেয়ার লাভ’ টিম তাদের এ পুরস্কার কয়েকদিন আগে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত কিংবদন্তি বাস্কেটবল খেলোয়ার কোবে ব্রায়ান্টকে উৎসর্গ করেছেন।

সেরা অ্যাডাপ্টেড চিত্রনাট্য : ‘জোজো র‌্যা বিট’

সেরা অ্যাডাপ্টেড চিত্রনাট্য বিভাগে পুরস্কার জিতেছে ‘জোজো র‌্যা বিট’। এটি লিখেছেন পরিচালক তাইকা ওয়াইটিটি নিজেই। একই বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছিল ‘জোকার’ (টড ফিলিপস ও স্কট সিলভার), ‘লিটল উইমেন’ (গ্রেটা গারউইগ), ‘দ্য টু পোপস’ (অ্যান্থনি ম্যাককার্টেন) ও ‘দি আইরিশম্যান’ (স্টিভেন জেইলিন)।

সেরা লাইভ অ্যাকশন শর্ট : ‘দ্য নেবার্স উইন্ডো’

ব্রাদারহুড, নেফতা ফুটবল ক্লাব, সারিয়া, অ্যা সিস্টারকে পেছেনে ফেলে লাইভ অ্যাকশন শর্ট বিভাগে পুরস্কার জিতে নিয়েছে ‘দ্য নেবার্স উইন্ডো।’ পুরস্কারটি হাতে নিয়ে ‘দ্য নেবার্স উইন্ডো’ পরিচালক মার্শাল কারি বলেন, ভালোভাবে বলা একটা গল্প আসলে খুবই শক্তিশালী একটা বিষয়।

সেরা প্রোডাকশন ডিজাইন : ‘ওয়ান্স আপন আ টাইম...ইন হলিউড

সেরা প্রোডাকশন ডিজাইনের দৌড়ে ছিল আরও যে চারটি নাম- ১৯১৭, প্যারাসাইট, দ্য আইরিশম্যান, জো জো র‍্যাবিট। তবে সবগুলোকে পেছনে ফেলে এবারের আসরে সেরা প্রোডাকশন ডিজাইন বিভাগে পুরস্কার গেল বারবারা লিং ও ন্যান্সি হেইঘের হাতে।

সেরা কস্টিউম ডিজাইন : লিটন উমেন (জ্যাকুলিন ডুরান)

সেরা কস্টিউম ডিজাইন দিয়ে অস্কার উঠল ‘লিটন উমেন’-এর ঝুলিতে। পুরস্কার হাতে নিয়ে জ্যাকুলিন ডুরান পরিচালক গ্রেটা গারউইগকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তিনি আমাদের সবার জন্য অনুপ্রেরণা। এ বিভাগে পুরস্কারের দৌড়ে আরও ছিল- জোকার, জোজো র্যাবিট, ওয়ান্স আপন আ টাইম...ইন হলিউড এবং দ্য আইরিশম্যান।

সেরা প্রামাণ্যচিত্র শর্ট : ‘লার্নিং টু স্কেটবোর্ড ইন আ ওয়ারজোন’

কাবুলের তরুণীদের লিখতে চাওয়া, পড়তে চাওয়া ও স্কেটিং শিখতে যাওয়া কথা বলা হয়েছে এ প্রামাণ্যচিত্রে। এ বিভাগে প্রতিযোগিতায় ছিল সেন্ট লুইস সুপারম্যান, ইন দ্য অ্যাবসেন্স, লাইফ ওভারটেকস মি এবং ওয়াক রান চা-চা।

সেরা সাউন্ড এডিটিং : ‘ফোর্ড ভার্সেস ফেরারি’

৯২তম অস্কারে সেরা সাউন্ড এডিটিংয়ের জন্য মনোনয়ন পেয়েছিল- ১৯১৭, ফোর্ড ভার্সেস ফেরারি, জোকার, ওয়ান্স আপন আ টাইম...ইন হলিউড, স্টার ওয়ার্স: দ্য রাইজ অব স্কাইওয়াকার। তবে সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শে পর্যন্ত এ বিভাগে অস্কার গেল ‘ফোর্ড ভার্সেস ফেরারি’র জন্য ডোনাল্ড সিলভেস্টারের হাতে।

বেস্ট সাউন্ড মিক্সিং : ‘১৯১৭’ (মার্ক টেলর ও স্টুয়ার্ট উইলসন)

এবারের অস্কার আসরে বেস্ট সাউন্ড মিক্সিংয়ের পুরস্কার তুলে নিয়েছেন মার্ক টেলর ও স্টুয়ার্ট উইলসন। ‘১৯১৭’ চলচ্চিত্রের জন্য এ পুরস্কার পেয়েছেন তারা। এ বিভাগে ‘১৯১৭’এর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে- ফোর্ড ভার্সেস ফেরারি, জোকার, ওয়ান্স আপন আ টাইম...ইন হলিউড এবং অ্যাড অ্যাস্ট্রা।

এদিকে ৯২তম অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডসের অভিনয় ও পরিচালনা বিভাগে মনোনয়ন পাওয়া সবাইকে একটি করে ব্যাগ উপহার দেওয়া হবে। এতে থাকবে ৮৫ লাখ টাকারও বেশি মূল্যের জিনিসপত্র। লস অ্যাঞ্জেলেস ভিত্তিক ডিসটিঙ্কটিভ অ্যাসেটস এসব গুডি ব্যাগ পাঠাবে। 

দুই দশক ধরে দায়িত্বটি পালন করছে এই বিপণন সংস্থা। সবাই ব্যাগের ভেতর পাবেন মিলিয়নার ক্রিস্টাল কানের দুল, হলোটিপসের ২৪ ক্যারেট সোনায় মোড়া একটি ভেপ কলম ও সিনিক এক্লিপস জাহাজে ১২ দিন ভ্রমণের টিকিট। ব্যাগে আরো থাকছে কোডা সিগনেচারের গাঁজামিশ্রিত চকোলেট, হটসি টটসি হাউসের বানানো ২৪ ক্যারেট সোনায় মোড়া রয়েল চাকরা বাথ বোম, ব্রাজিলিয়ান বেগুনি বালি ও নারিকেলের দুধ।

-এমজে